Pran All Time

মোহামেডানে ‘নামের ভার’ আবাহনীতে ‘পারফরমার’

মোহামেডানে ‘নামের ভার’ আবাহনীতে ‘পারফরমার’

UNB NEWS

সোমবার ০৭ আগস্ট, ২০১৭ ০৭:২১:১৪ পিএম

 মোহামেডানে ‘নামের ভার’ আবাহনীতে ‘পারফরমার’

দেশের ফুটবলের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচ উত্তাপ হারিয়েছে অনেক আগেই। পরিণত হয়েছে ক্ষয়ে যাওয়া অতীতের নস্টালজিয়ায়। এই খেলা নিয়ে টান টান আগ্রহ নেই সাধারণ দর্শকদের। কিন্তু ঐতিহ্য মেনেই যেন দুই ক্লাবের তাঁবুতে তৈরি হয় একটু আলাদা আলোড়ন। টেলিভিশন ক্যামেরার আনাগোনা চলে, দুই দলের কোচ-অধিনায়ককে বলতে হয় কিছু গৎবাঁধা কথা—‘ম্যাচটি মর্যাদার’, ‘জেতার জন্যই খেলব’, ‘হারা চলবে না’ ইত্যাদি ইত্যাদি। আজ সন্ধ্যা সোয়া সাতটায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে শুরু হতে যাওয়া এই ম্যাচটি দেশের ফুটবলের করুণ দশার হাহাকার নিয়েই যেন হাজির হবে। অথচ, দেশের ফুটবলের সবচেয়ে দর্শকপ্রিয় দুই ক্লাবের লড়াই এটি।
ধূসর অতীতের স্মৃতি-কাতরতা তারপরেও কারও কারও মধ্যে ভর করবে। যৌবনে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে প্রিয় দলের পতাকা হাতে হাজির হওয়া কোনো কোনো ফুটবলপ্রেমী হয়তো শত ব্যস্ততার মধ্যেও খবর নিতে চেষ্টা করবেন—কে জিতল! হয়তো কপট তর্কও জুড়ে দেবেন প্রতিপক্ষ দলের সমর্থক প্রিয় কোনো বন্ধুর সঙ্গে। কিন্তু কিছুতেই কিছু হবে না। অতীতের সেই দেশ কাঁপানো আবহটা যে কোনোভাবেই হাজির হবে না আজকের এই ম্যাচটিকে ঘিরে।
হওয়ার কোনো কারণই নেই। ফুটবল রং হারিয়েছে। রং হারিয়েছে দুই ক্লাবই। সবচেয়ে করুণ অবস্থা মোহামেডানের। দেশের ফুটবল পেশাদার জগতে নাম লেখানোর পরে নয়টি মৌসুম পেরিয়ে গেলেও এখনো শিরোপা ছুঁয়ে দেখতে পারেনি মোহামেডান। শেষ মৌসুমে ১২ দলের মধ্যে দশম হয়ে কোনো মতে অবনমন এড়িয়েছে তারা। মাঠে ও মাঠের বাইরে শত সমস্যায় জর্জরিত। সে তুলনায় আবাহনীর অবস্থা অনেক ভালো। প্রিমিয়ার লিগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন তারা। শক্তিমত্তায়ও মোহামেডানের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে। মোহামেডানে এমিলি, মিঠুন, ফয়সাল মাহমুদদের মতো কিছু খেলোয়াড় থাকলেও মাঠে তাঁদের কোনো পারফরম্যান্স নেই। আবাহনীর ইমন বাবু, সাদউদ্দিনরা সে হিসেবে পারফরমার। আজকের ম্যাচটি আসলে আবাহনীর ‘পারফরমার’দের সঙ্গে মোহামেডানের ‘নামের ভারে’ নুইয়ে থাকা কিছু খেলোয়াড়ের প্রতিদ্বন্দ্বিতা।
আবাহনী খেলে ৪-৩-৩ ফরমেশনে। ফেডারেশন কাপের অপরাজিত চ্যাম্পিয়নরা এবারের লিগ শুরু করেছিল দুর্দান্তই। প্রথম ম্যাচেই সাইফ স্পোর্টিংকে ৩-২ গোল হারানোর পর পর দ্বিতীয় ম্যাচে ফরাশগঞ্জের কাছে ১-০ গোলে হেরে গেছে তারা। ৪-৫-১ ফরমেশনের মোহামেডান এখনো লিগে পয়েন্টের খাতা খোলেনি। প্রথম দুই ম্যাচে তারা হেরেছে শেখ জামাল ও চট্টগ্রাম আবাহনীর কাছে।
চিনে নিন আবাহনী-মোহামেডান দল দুটিকে

আবাহনীর রক্ষণ 
নিয়মিত অধিনায়ক মামুন মিয়া চোটে থাকলেও ওয়ালি, রায়হান, সামাদ ও টুটুল বাদশাকে নিয়ে কোটি টাকার রক্ষণভাগ আবাহনীর। তবুও শেষ দুই ম্যাচে গোল হজম করেছে তিনটি। ম্যান মার্কিংয়ে বড় দুর্বলতা ফুটে উঠেছে দুটি ম্যাচেই।


আবাহনীর মাঝমাঠ
স্টপারব্যাক নাসিরুদ্দিন চৌধুরীকে হোল্ডিং মিডফিল্ডার হিসেবে খেলানো হচ্ছে। এ ছাড়া দুই অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার ইমন বাবু ও সোহেল রানার কারণে মধ্যমাঠটা বেশ সচল। উইং প্লেতেও বেশ ভালো দলটি।


আবাহনীর আক্রমণ
এমেকা ডার্লিংটন, রুবেল মিয়া ও সাদউদ্দিনকে নিয়ে দুর্দান্ত আক্রমণভাগ। সাইফের বিপক্ষে জোড়া গোল করে লিগ শুরু করেছেন এমেকা। ডান প্রান্ত দিয়ে প্রতিপক্ষের জন্য খুবই ভয়ংকর রুবেল। সাদও সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে পারেন ভালোমতোই।


আবাহনীর সম্ভাব্য একাদশ: সোহেল, ওয়ালি, রায়হান, সামাদ, বাদশা, নাসিরুদ্দিন, ইমন বাবু, সোহেল রানা, এমেকা, রুবেল মিয়া ও সাদ।

মোহামেডানের রক্ষণ
এমেকাকে পাহারায় রাখার জন্য আজ একাদশে সুযোগ পাচ্ছেন নাইজেরিয়ান স্টপার ব্যাক এডামস। তার সঙ্গে তরুণ মানিক। দুই ফুল ব্যাকে নাসিরুল ও লিংকন। লেফট ব্যাক লিংকনকে কঠিন পরীক্ষা দিতে হবে প্রতিপক্ষ রাইট উইঙ্গার রুবেলের কাছে।


মোহামেডানের মাঝমাঠ
মাঝমাঠের দখল চায় মোহামেডানের। তাই পাঁচ মিডফিল্ডার নিয়ে একাদশ সাজাচ্ছে তারা। প্রথমবারের মতো হোল্ডিং মিডফিল্ডার হিসেবে মাঠে থাকবেন তরুণ মনির। সঙ্গে শরিফ ও বিপলু। দুই উইংয়ে কোমল ও তকলিস। দুজনই পরিশ্রমী।


মোহামেডানের আক্রমণ
একাদশে স্ট্রাইকার কিংসলের না থাকার সম্ভাবনাই বেশি। একমাত্র স্ট্রাইকার নাম্বার নাইন হিসেকে খেলবেন স্যামসন ইলিয়াসু। স্যামসন মূলত মিডফিল্ডার হিসেবে খেলে থাকেন।


সম্ভাব্য একাদশ: মামুন খান, নাসিরুল , মানিক, এডামস, লিংকন, শরীফ, স্যামসন, মনির, তকলিস, কোমল ও বিপলু।