গভীর শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় গাজীপুরের নুহাশ পল্লীতে জনপ্রিয় কথা সাহিত্যক হুমায়ূন আহমেদের ৬৯তম জম্ম বার্ষিকী  পালিত হয়েছে।  

">
Pran All Time

শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় হুমায়ূন আহমেদের জম্মদিন পালন

UNB NEWS

সোমবার ১৩ নভেম্বর, ২০১৭ ০৪:২২:০২ পিএম

শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় হুমায়ূন আহমেদের জম্মদিন পালন

গাজীপুর, ১৩ ম্নভেম্বের (ইউএনবি) – গভীর শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় গাজীপুরের নুহাশ পল্লীতে জনপ্রিয় কথা সাহিত্যক হুমায়ূন আহমেদের ৬৯তম জম্ম বার্ষিকী  পালিত হয়েছে।  

জম্মদিন উপলক্ষে কেক কাটা, মোমবাতি প্রজ্জ্বলনসহ নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

হুমায়ূন আহমেদের স্মৃতি আর ব্যবহৃত জিনিসপত্র সংরক্ষণে নুহাশপল্লীতে জাদুঘর নির্মাণের কথা বলছেন তার স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন।

সকাল থেকে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসে নন্দিত লেখক হুমায়ূন আহমেদের ভক্তরা। সাইকেল, বাসে চড়ে হলুদ পাঞ্জাবী পড়া হিমু পরিবারের সদস্যরাও আসছেন।

কবরে ফুল দিয়ে গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন সাংবাদিক, লেখক, সাহিত্যিকসহ নানা শ্রেণিপেশার মানুষ। ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন তারা।
যথাযথ মর্যাদায় জননন্দিত এই কথা সাহিত্যিকের ৬৯তম জন্মদিন পালনের লক্ষে হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন তার দুই ছেলে নিষাদ ও নিনিদকে সাথে নিয়ে নুহাশ পল্লীতে আসেন।

সকাল ১১টার দিকে শাওন তার দুই পুত্র সন্তান নিয়ে হুমায়ূন আহমেদের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে নুহাশ পল্লীতে উৎসব মুখর পরিবেশে জম্মদিনের কেক কাটেন।

সেখানে মেহের আফরোজ শাওন বলেন, সারাদেশের মানুষ হুমায়ূন আহমেদকে যেভাবে স্মরণ করে তাতে আমাদের খুব ভাল লাগে। মনে হয়, বিশেষ বিশেষ  দিনগুলোতে হুমায়ূন সবার আদরের হুমায়ূন হয়ে যায়। তার প্রতি ভালবাসা ও স্মৃতি সংরক্ষণে খুব শিগগিরই নুহাশ পল্লীতে হুমায়ূন স্মৃতি জাদুঘরের কাজ শুরু করা হবে।

১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার  কুতুবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন নন্দিত কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ। তার বাবা ফয়েজুর রহমান ও মা আয়েশা ফয়েজ।

২০১২ সালে ১৯ জুলাই মরনব্যাধি ক্যান্সারে  আক্রান্ত হয়ে তিনি নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে মারা যান।

বাংলা সাহিত্যের এ বরপুত্র লেখনীর মাধ্যমে তার জম্মদিনে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হচ্ছেন। তিনি অছেন এবং থাকবেন তার ধ্রুপদী সাহিত্যের মাধ্যমে এমনটাই আশা তার ভক্তদের।