Pran All Time

দক্ষতা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে বিসিআইসির আধনিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট

UNB NEWS

মঙ্গলবার ১৪ আগস্ট, ২০১৮ ০৬:৫৬:০০ পিএম

দক্ষতা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে বিসিআইসির আধনিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট

ঢাকা, ১৪ আগস্ট (ইউএনবি)- বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশনের (বিসিআইসি) আধুনিক ও শক্তিশালী কেন্দ্রীয় প্রশিক্ষণকেন্দ্র ট্রেনিং ইন্সটিটিউট ফর কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজের (টিআইসিআই) যাত্রা শুরু হচ্ছে আগামী ২৯ আগস্ট।

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু নরসিংদীতে আনুষ্ঠানিকভাবে টিআইসিআইয়ের উদ্বোধন করবেন বলে একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

কর্মকর্তারা জানান, নতুন টিআইসিআই শিল্পখাতের পেশাদার ব্যক্তিদের পাশাপাশি শিক্ষার্থী ও শিক্ষকদের আধুনিক প্রযুক্তিগত সহায়তা দেবে। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম-আয়ের দেশ হওয়ার জন্য যে শিল্পায়নমুখী অর্থনৈতিক উন্নয়ন দরকার তার জন্য চাহিদা অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটি উচ্চ দক্ষতাসম্পন্ন মানবসম্পদ তৈরি করবে।

এদিকে, বিশ্বমানের অত্যাধুনিক টিআইসিআই থেকে প্রাপ্ত সেবা সম্পর্কে জানাতে মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে উদ্বোধন-পূর্ব কর্মশালার আয়োজন করা হয়। কোরিয়া ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি (কইকা), বিসিআইসি ও টিআইসিআই যৌথভাবে এ কর্মশালার আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, সংসদ সদস্য কামরুল আশরাফ খান, শিল্পসচিব মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ্, কইকা বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর জু হাং-গু, বাংলাদেশে দক্ষিণ কোরিয়া দূতাবাসের ডেপুটি হেড অব মিশন ডং-জুন লি, বিসিআইসি চেয়ারম্যান শাহ্ মো. আমিনুল হক ও টিআইসিআইয়ের নির্বাহী পরিচালক প্রকৌশলী মো. লুৎফুর রহমানসহ দেশের বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠান ও বিশ্ববিদ্যালয়ের দেড় শতাধিক প্রতিনিধি অংশ নেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বিসিআইসি থেকে অবসরপ্রাপ্ত অভিজ্ঞ প্রকৌশলী, রসায়নবিদ ও প্রযুক্তিবিদদের নিয়ে একটি অপরারেশন অ্যান্ড ম্যান্টেইনেন্স অ্যাসিসটেন্স সার্ভিস পুল গঠনের পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘এ পুলের সদস্যরা বিসিআইসিসহ দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি শিল্প প্রতিষ্ঠানে কারিগরি সেবা দিতে পারবেন। এতে বিদেশি বিশেষজ্ঞের পরিবর্তে দেশেই সাশ্রয়ী মূল্যে বিশ্বমানের কারিগরি সেবা পাওয়া যাবে।’

আমির হেসেন আমু বলেন, জ্ঞানভিত্তিক শিল্পায়নের অভিযাত্রা জোরদারের জন্য দক্ষ ও অভিজ্ঞ কারিগরি জনবলের বিকল্প নেই। শিক্ষা জাতির মেরুদণ্ড হলেও কারিগরি শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ হচ্ছে অর্থনীতির মেরুদণ্ড। দক্ষ জনশক্তির ওপর দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি, শিল্পায়ন ও রেমিট্যান্স আয় নির্ভর করে। উন্নত দেশগুলোতে শতকরা ৬০ ভাগের বেশি শিক্ষার্থী কারিগরি শিক্ষা নিলেও বাংলাদেশে এর পরিমাণ এখনো শতকরা ১৫ ভাগের নিচে।

দেশের শিল্প কারখানায় দক্ষ টেকনিশিয়ান ও প্রকৌশলীর চাহিদা মেটাতে সরকার টিআইসিআই স্থাপন করেছে বলে তিনি জানান।

শিল্পমন্ত্রী আরো বলেন, টিআইসিআইয়ে প্রশিক্ষিত জনবল রাষ্ট্রায়ত্ত সার কারখানার উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি ও মূল্যবান যন্ত্রপাতি রক্ষণাবেক্ষণে শুরু থেকেই ভূমিকা রাখছে। ফলে পুরাতন যন্ত্রপাতি দিয়েও বিসিআইসির আওতাধীন সার কারখানাগুলো সচল রাখা সম্ভব হয়েছে। নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবনের ফলে শিল্পখাতে বিশেষায়িত কারিগরি সেবার চাহিদা পাল্টে যাচ্ছে। পরিবর্তিত চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে দক্ষিণ কোরিয়ার সহযোগিতায় বর্তমান সরকার টিআইসিআইয়ের আধুনিকায়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে বলে তিনি উল্লেখ করেন।