সৌরবিদ্যুৎ পাল্টে দিয়েছে বান্দরবানের দুর্গম পাহাড়ি পল্লী অঞ্চল। সরকারের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় সৌরবিদ্যুত খাতে গত তিন বছরে উল্লেখযোগ্যহারে বরাদ্দ প্রদান করায় পাহাড়ের গ্রামগুলো এখন আলোকিত হয়ে উঠেছে। এতে পাহাড়ি অঞ্চলের মানুষের জীবনমানেও উন্নতির প্রভাব পড়েছে।

">
Pran All Time

বান্দরবানে সৌরবিদ্যুতে আলোকিত পাহাড়ের পল্লী অঞ্চল

আমিনুল ইসলাম বাচ্চু

শনিবার ১১ আগস্ট, ২০১৮ ১০:৪৫:১২ এএম

বান্দরবানে সৌরবিদ্যুতে আলোকিত পাহাড়ের পল্লী অঞ্চল

বান্দরবান, ১১ আগস্ট (ইউএনবি)- সৌরবিদ্যুৎ পাল্টে দিয়েছে বান্দরবানের দুর্গম পাহাড়ি পল্লী অঞ্চল। সরকারের কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয় সৌরবিদ্যুত খাতে গত তিন বছরে উল্লেখযোগ্যহারে বরাদ্দ প্রদান করায় পাহাড়ের গ্রামগুলো এখন আলোকিত হয়ে উঠেছে। এতে পাহাড়ি অঞ্চলের মানুষের জীবনমানেও উন্নতির প্রভাব পড়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন শাখার আওতায় বান্দরবানের ৭টি উপজেলায় গত তিন বছরে ১৪ হাজার ২২৭টি প্রতিষ্ঠানকে সোলার সিস্টেম প্রদান করা হয়েছে। এছাড়াও দুর্গম পাহাড়ে বসবাসকারী দরিদ্র মানুষের মাঝে একই সময়ে ৫ হাজার ৭২৩টি পরিবারিক সোলার সিস্টেম বিতরণ করা হয়েছে। একই সময়ে সাত উপজেলার গুরত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে ৬৫৬টি স্ট্রিট লাইট স্থাপন করা হয়েছে।

সূত্র জানায়, এ সকল কার্যক্রম বাস্তবায়নে প্রায় ১০ কোটি ৫০ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে।

গ্রামীণ পর্যায়ে সৌর প্যানেল বিতরণ করায় এখন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান,শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান,কমিউনিটি ক্লিনিক,কমিউনিটি সেন্টার,গ্রামীণ হাট বাজার এবং সামাজিক ও সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠানগুলো সৌর বিদ্যুতের আওতায় এসেছে।

পারিবারিকভাবে সোলার সিস্টেম বিতরণের ফলে শিক্ষার্থীরা রাতে লেখা পড়ার সুযোগ পেয়েছে এবং গৃহস্থালীর কাজে সহায়ক হয়েছে।

এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের অর্থায়নে প্রত্যন্ত এলাকায় সোলার প্যানেল স্থাপনের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ নামে একটি প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। এ প্রকল্পের জেলার সাত উপজেলায় ইতোমধ্যে ২ হাজার ৩৬০ জন উপকারভোগীর মাঝে সোলার সিস্টেম বিতরণ করা হয়েছে। এতে ব্যয় হয়ে ৮৪ লাখ ৯৬ হাজার টাকা।

পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ম মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি জানান, তিন পার্বত্য জেলার দুর্গম এলাকায় বিদ্যুৎ লাইন সম্প্রসারণ এবং সোলার সিস্টেমের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করতে ৫৬৩ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্পের কার্যক্রম ২০১৮ সাল থেকে শুরু হয়েছে। এতে আগামী ৫ বছরে যে সকল এলাকায় বিদ্যুৎ পৌঁছানো সম্ভব নয় এমন এলাকার জনগণকে সৌর বিদ্যুতের আওতায় আনা হবে। বিশেষ করে বান্দরবানের রুমা,থানছি,রোয়াংছড়ি,আলীকদম ও নাইক্ষংছড়ি উপজেলার দুর্গম পাহাড়ি পল্লীতে বসবাসকারী জনগণ অগ্রাধিকার পাবেন।

এদিকে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের প্রকৌশল শাখার আওতায় ইতোমধ্যে লামা ও বান্দরবান পৌরসভায় গুরুত্বপূর্ণ স্থানে প্রায় ৪০০টি স্ট্রিট লাইট স্থাপন করা হয়েছে। এতে প্রায় ২ কোটি টাকা ব্যয় হয়েছে, বলেন নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ ইয়াছির আরাফাত।