ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় শরীয়তপুরের ছয় উপজেলার ১০২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনে চলছে পাঠদান। একই কারণে বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমছে।

">
Pran All Time

শরীয়তপুরে ১০২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন ঝুঁকিতে

UNB NEWS

শুক্রবার ২৬ জানুয়ারি, ২০১৮ ০৪:৪১:০৪ পিএম

শরীয়তপুরে ১০২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন ঝুঁকিতে

শহীদুল ইসলাম পাইলট, ২৬ জানুয়ারি (ইউএনবি)- ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় শরীয়তপুরের ছয় উপজেলার ১০২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনে চলছে পাঠদান। একই কারণে বিদ্যালয়গুলোতে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি কমছে।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১০২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় পাঠদান চলছে। নড়িয়া উপজেলায় ৩৭টি, জাজিরা উপজেলায় ৫৯টি, সদর উপজেলায় ৪টি, ভেদরগঞ্জ উপজেলায় ১টি ও ডামুড্যা উপজেলায় ১টি বিদ্যালয়ের ভবন ঝুঁকিতে রয়েছে।

শিক্ষার্থী শামীম হোসেন, অয়ন দোলা আক্তার, সমন্ন দাস, রুমান, রাত্রি, পপু মোল্লা, সাজিদ হোসেনসহ অনেকেই জানিয়েছে, এসব ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয়ে ক্লাস করতে গিয়ে তারা সব সময় ভীত-সন্ত্রস্ত হয়ে পড়ে। ভবন ধসের ভয়ে অধিকাংশ সময় তারা লেখা-পড়ায় মনোযোগ দিতে পারছে না।

৫৭ নং ধানুকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রনজিৎ কুমার দাস বলেন, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক মো. শফিকুর রহমান ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আবুল কালাম আজাদ বিদ্যালয় পরিদর্শনে এসে ভবনের অবস্থা দেখে শংকা প্রকাশ করেছেন। বিদ্যালয়ের ভবনটির অবস্থা জানিয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর গত ৪ মে একটি অবহিতকরণপত্র প্রেরণ করেছি। কিন্তু এখনো কোনো প্রতিকার পাইনি। অভিভাবকরা সন্তানদের বিদ্যালয়ে পাঠাতে ভয় পান। তাই পুরনো একটি টিনশেড ভবনে ক্লাস নিচ্ছি।

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমরা জেলার ছয়টি উপজেলায় ১০২টি বিদ্যালয় জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ বলে তালিকাভূক্ত করেছি। এসব জরাজীর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয়ের তালিকা প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর বরাবর পাঠিয়েছি। এসব বিদ্যালয়গুলো সংস্কার বা পুনঃনির্মাণ শিগগিরই করা হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

বিদ্যালয়ের ভবনগুলো পুনঃনির্মাণ হলে লেখাপড়ার পরিবেশ ফিরে আনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি নিশ্চিত হবে বলে আশা করেন তিনি।